পুলকার, চালক বদল মাঝপথেই, চাঞ্চল্যকর অভিযোগ আত্মীয়ের

0
390

হুগলির পোলবায় পুলকার দুর্ঘটনার পর মাঝপথে চালক ও পুলকারটি বদলের অভিযোগ করেছেন দুর্ঘটনার কবলে পড়া শিশুদের পরিবার। তাঁরা জানান, দুর্ঘটনার পর তাঁদের সেটা নজরে আসে। ওইদিন আহত চালকের গাড়িতে ওঠেনি পড়ুয়ারা। তারা উঠেছিল আরেক ড্রাইভারের গাড়িতে। ঋষভের আত্মীয় সঞ্জয় ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, তাঁরা এই বিষয়ে জেলা পরিবহন দফতরের কাছে অভিযোগ করেছেন। পুলিশসূত্রের খবর, গাড়িটির স্পিড লিমিটারের তার ছেঁড়া ছিল। তাই দুরন্ত গতিতে গাড়িটি ডিভাইডারে ধাক্কা মেরে উল্টে পড়ে নয়ানজুলিতে। সুস্থ হলে চালক পবিত্র দাসকে গ্রেফতার করা হবে।
এদিকে, দুর্ঘটনায় জখম ঋষভ সিং এবং দিব্যাংশু ভকত নামে দ্বিতীয় শ্রেণির দুই পড়ুয়ার অবস্থার সামান্য উন্নতি হয়েছে। শুক্রবার গ্রিন করিডর করে তাদের হুগলি থেকে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ঋষভের ফুসফুসে অতিরিক্ত পরিমাণে কাদা-জল ঢুকে যাওয়ায়, বিশেষ পদ্ধতিতে বাইরে থেকে পাম্পের সাহায্যে কৃত্রিম ফুসফুসের মাধ্যমে রক্তে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই অক্সাইডের মাত্রা স্বাভাবিক রাখা হচ্ছে। দিব্যাংশুর মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধে রয়েছে। চুচুঁড়ার একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের প্রায় ১৮ জন ছাত্র ছিল গাড়িতে। আহত ছাত্রদের অবস্থা জানতে হাসপাতালে ফোন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং মন্ত্রী তপন দাশগুপ্ত হাসপাতালে গিয়ে খোঁজখবর নেন। যান বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ও।