রাবণের পুজো

0
41

বাকি দেশে যখন সাড়ম্বরে চলছে দশেরা, পোড়ানো হচ্ছে রাবণের কুশপুতুল, তখন এক মন্দিরে দশাননের পুজোর আয়োজন। রাবণ ছিলেন বিরাট পণ্ডিত, তিনি সব ইচ্ছা পূরণ করেন। এই বাসনা নিয়ে পূণ্যার্থীরা জড়ো হন দশানন মন্দিরে।
লখনউয়ের দশানন মন্দির প্রাচীন। মনে করা হয়, গুরু প্রসাদ শুক্ল ১৮৯০ নাগাদ প্রতিষ্ঠা করেন এই মন্দিরের। কেবল দশেরার দিন প্রতিবছর খোলা হয় এই মন্দিরটি। ভক্তেরা জানান, রাবণের উপাসনার জন্য তাঁরা আসেন। তাঁদের ইচ্ছাপূরণ হয়। রাবণ ভক্তদের বেশিরভাগই ছত্রি আর ঠাকুর সম্প্রদায়ের।
এই দিনে রাবণকে সাজানো হয় রঙিন ফুল দিয়ে। হয় আরতি। ভক্রতেরা এসে জ্বালান প্রদীপ। রাবণমূর্তির সামনে চলে মন্ত্রপাঠ। তারপর রাবণের কুশপুতুল পুড়িয়ে বছরের মতো বন্ধ হয়ে যায় মন্দিরের দরজা। (জি নিউজ)