ইস্তফা নয়, ভোটাভুটিতেই আস্থা সব্যসাচীর

0
971

সমস্ত জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে বিধাননগর পুরনিগমে এলেন তিনি, বসলেন মেয়রের চেয়ারেও। রবিবার থেকে শুরু করে সোমবার দিনভর নানান জল্পনা-কল্পনার মধ্যে দিয়ে চললেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত। তাঁকে নিয়ে পুরমন্ত্রীর কটাক্ষ, পালটা তোপ বিধাননগরের মেয়রেরও, কখনও ইস্তফার জল্পনা সবমিলিয়ে টানটান নাটকের অবসান ঘটালেন তিনিই। বিধাননগরের মেয়রের চেয়ারে বসেই স্বভাবসুলভ হাসিমুখে জানিয়ে দিলেন তিনি ইস্তফা দিচ্ছেন না। ভোটাভুটিতেই যেতে চান তিনি। এরপরই দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে রীতিমত চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বলে দিলেন, ‘যেদিন ভোটাভুটি হবে সেদিনই দেখতে পাবেন কতজন কাউন্সিলর আমার সঙ্গে আছেন। আমি মেয়র হিসেবেই কাজ চালিয়ে যাব।’ এছাড়াও স্পষ্ট ভাষায় তিনি জানিয়ে দিলেন, দলের অনেকেই তাঁকে ফোন করছেন তবে কেউ তাঁকে ইস্তফা দিতে বলেননি। ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়ের নাম না নিয়েই সব্যসাচীর কটাক্ষ, ‘উনি পোল ভল্টে গোল্ড মেডেলিস্ট’। এরপর মেয়রের ঘর থেকে বেড়িয়ে হটাৎ করেই ঢুকে পরেন পুরসভার চেয়ারপার্সন কৃষ্ণা চক্রবর্তীর ঘরে। সেখানে তখন বেশ কয়েকজন কাউন্সিলরও রয়েছেন। ফের একবার জল্পনা শুরু হয় ইস্তফা দেওয়ার। কিন্তু কৃষ্ণা চক্রবর্তী সেই জল্পনা নস্যাৎ করে দিয়ে বলেন, এখনও মেয়র সব্যসাচী তাই ও আসতেই পারেন। তাঁর কথায়, রাজনীতিতে কূটনীতি থাকবেই, সবসময় সৌজন্য থাকেনা। এখন দেখার কবে তৃণমূল নেতৃত্ব সব্যসাচীর বিরুদ্ধে অনাস্থা আনে।