ভরসা নৌকা

0
188

উত্তরবঙ্গে বন্যা পরিস্থিতি যত খারাপ হচ্ছে ততই আতঙ্কে ভুগছেন উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জের চারটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ। রায়গঞ্জ ব্লকের ৯ নম্বর গৌরী গ্রাম পঞ্চায়েতের বাংলা-বিহার সীমান্তে অবস্থিত চারটি গ্রাম অনন্তপুর, রহমতপুর (দ্বীপনগর), গোয়ালদহ, বালিচর।
দু’টি বড় নদী নাগর ও কুলিকের সংযোগস্থলে অবস্থিত দ্বীপের মতো এলাকায় গ্রামগুলির অবস্থান। নদীদুটির জলস্তর বেড়ে যাওয়ায় নিত্যদিনই বাসিন্দারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নৌকায় করে পারাপার করছেন। ওই গ্রামগুলিতে হাইস্কুল না থাকায় শিশু কিশোরদের বছরভরই নৌকায় নদী পারাপার করে স্কুলে যেতে হয়। বাসিন্দাদেরও একইভাবে নদী পার হয়ে নানা কাজে যেতে হয়।
ফলে এমনিতেই তাঁদের বছরভর ভোগান্তি পোহাতে হয়। তবে বর্ষার কয়েক মাস সেই ভোগান্তি কয়েক গুণ বেড়ে যায়। বর্ষার সময় নদীর জল বেড়ে দু’কুল ছাপিয়ে গেলে বা রাতে নৌকা চলাচল বন্ধ থাকলে কয়েক হাজার মানুষ সমস্যায় পড়েন। উল্লেখ্য ২০১৭ সালে উত্তর দিনাজপুর জেলায় ভয়াবহ বন্যার সময়ে নৌকা পরিষেবা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সেখানে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি হয়েছিল। সেই অভিজ্ঞতা মনে পড়লে এখনও শিউরে ওঠেন বাসিন্দারা।
নদীর সংযোগস্থলে অবস্থিত হওয়ায় সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির শিকার হন রহমতপুরের বাসিন্দারা। একেবারে দুই নদীর সংযোগস্থলে দ্বীপের মতো জায়গায় অবস্থান বলে এই গ্রামটির নাম হয়ে গিয়েছে দ্বীপনগর। তাই এবারেও বর্ষার মরশুম হতেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বাসিন্দারা। তাই এই সমস্যার সমাধানে অবিলম্বে প্রশাসনিক হস্তক্ষেপের দাবি তুলেছেন কয়েক হাজার গ্রামবাসী।