ঢাকুরিয়া বিনোদিনী গার্লস কাণ্ডে রিপোর্ট চাইল নবান্ন

0
382

ঢাকুরিয়া বিনোদিনী গার্লসের ঘটনায় ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। পুলিশ ও শিক্ষা দফতরের কাছে  অবিলম্বে ঘটনার পুঙ্খানুপুঙ্খ রিপোর্ট চেয়েছে নবান্ন। এক নাবালিকার ওপর যৌন নির্যাতনের প্রতিবাদে বিক্ষোভরত অভিভাবকদের ওপর লাঠি চালায় পুলিশ। লাঠির ঘায়ে আহত অনেকেই। মাথা ফেটে যায় এক অভিভাবকের। ঘটনার সূত্রপাত ৬ বছরের এক শিশুর উপর যৌন নির্যাতনের অভিযোগ নিয়ে। জানা গেছে, বনধের দিন স্কুলের ভিতরই ওই শিশুর উপর নির্যাতন চালানো হয়। অভিযুক্ত ওই স্কুলেরই এক শিক্ষক। তখন ওই শিশুটির মা ডেঙ্গিতে আক্রান্ত ছিলেন। এদিন সকালে নির্যাতিতা শিশুর মা স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনা জানাজানি হতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্কুলের সামনে উপস্থিত অভিভাবকরা। অভিযুক্ত শিক্ষককে তাঁদের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য দাবি জানাতে থাকেন তাঁরা। ক্ষুব্ধ অভিভাবকদের আরও দাবি করেন, স্কুলের ভিতর তাঁদের সন্তানকে আটকে রাখা হয়েছে। বেরোতে দেওয়া হচ্ছে না। অবিলম্বে পড়ুয়াদের ছাড়ারও দাবি তোলেন তাঁরা। এরপরেই কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় স্কুল চত্বর। পুলিশের লাঠিচার্জে বেশ কয়েকজন অভিভাবক গুরুতর আহত হয়েছেন। মাথা ফেটে যায় এক অভিভাবকেরও। বিক্ষুব্ধ জনতার পাল্টা আঘাতে আহন হন পুলিশকর্মীরাও। বিক্ষোভকারীদের ছোঁড়া ইটে জখম হয়েছেন গড়িয়াহাট থানার ওসি সুমিত দাশগুপ্ত। মহিলা পুলিশ ছাড়াই অভিভাবকদের উপরে লাঠিচার্জের ঘটনায় উঠেছে সমালোচনার ঝড়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছ। ১০ জন পুলিশ কর্মী আহত হয়েছেন।অশান্তি পাকানোর দায়ে ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গোটা ঘটনায় অসন্তোষ প্রকাশ করে স্কুল শিক্ষা দফতরও। সেই সঙ্গে নবান্ন থেকেও সমস্ত রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে।