নিহত কর্মীর পরিবারের পাশে কৈলাশ

0
562

কৃষ্ণনগরে নিহত বিজেপি কর্মীর বাড়িতে গেলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। সঙ্গে ছিলেন কৃষ্ণনগরের বিজেপি প্রার্থী কল্যাণ চৌবে। রাজ্যে সন্ত্রাসের পরিবেশ গড়ে তোলার অভিযোগে কৈলাশ বিদ্ধ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। কৃষ্ণনগরের ভীমপুর থানার এলাঙ্গী গ্রাম। ভোট পরবর্তী সন্ত্রাসে সেখানে মৃত্যু হয় বিজেপি কর্মী হারাধন মৃধার। অভিযোগে তির তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। গত বুধবার হারাধনের বাড়িতে হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ। নৃশংসভাবে মারধর করে তাঁকে। সেসময় বাঁচাতে গিয়ে জখম হন হারাধনের স্ত্রী ও ছেলে। গুরুতর অবস্থায় হারাধনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বৃহস্পতিবার সেখানেই মৃত্যু তাঁর হয়।
শনিবার নিহত দলীয় কর্মীর বাড়িতে যান বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। সঙ্গে ছিলেন কল্যাণ চৌবে ও দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। রাজ্য জুড়ে তৃণমূল সন্ত্রাস চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়। এই পরিস্থিতির জন্য সরাসরি তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই দায়ী করেন তিনি। নিহত বিজেপি কর্মীর পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান বিজেপি নেতৃবৃন্দ। তাঁদের পাশে থাকারও আশ্বাস দেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।
বিজেপি নেতৃত্ব কথা বলেন ওই দিনের ঘটনায় আহত অন্যান্য বিজেপি কর্মীদের সঙ্গেও। কৈলাশ বিজয়বর্গীয় আসবেন জেনে তৈরিই ছিল এলাঙ্গী গ্রাম। তাঁকে পেয়ে তাঁরা সরব হন তৃণমূলের সন্ত্রাসের অভিযোগে। এলাঙ্গী গ্রামের পাশাপাশি কৈলাশ বিজয়বর্গীয় যান বাগবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ও ভাতসালা গ্রামে। সেখানে গিয়েও তিনি দেখা করেন আক্রান্ত বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে। নির্বাচন মিটতেই কৃষ্ণনগরের এই সব এলাকায় তৃণমূল সন্ত্রাস চালিয়েছে বলে অভিযোগ।