১২ ঘন্টা বিছানায় পড়ে মায়ের নিথর দেহ, জমির মাপজোকে ব্যস্ত ছেলে-মেয়ে!

0
3442

ভোররাতে মারা গিয়েছেন বৃদ্ধা মা অথচ সকাল পেরিয়ে দুপুর হয়ে গেলেও কোনও হেলদোল নেই ৩ সন্তানের। দেহ সৎকারের কোনও ব্যবস্থা করা তো দূর অস্ত, কোনও প্রস্তুতিই নেয়নি পরিবার। উল্টে মৃতার সন্তানরা ব্যস্ত ছিলেন জমির মাপজোক নিয়ে। বুধবার এমনই অমানবিক ঘটনার সাক্ষী থাকল উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ শহর। প্রতিবেশীদের দাবি, এদিন ভোরেই মারা যান নিয়তী দত্ত। তাঁর স্বামীও সাতমাস আগেই মারা গিয়েছেন। ফলে জমিজমা নিয়ে সন্তানদের মধ্যে বিবাদ চলছিলই। এদিন মায়ের মৃত্যুর পরও ডেথ সার্টিফিকেট সংগ্রহের জন্য চিকিৎসকের কাছে যাওয়া বা পারোলৌকিক ক্রিয়ার ব্যবস্থা নিয়ে কোনই উদ্যোগ নিতে দেখা গেলনা। কাপড় চাপা অবস্থাতেই ঘরে পরে রইল মায়ের দেহ। আর আমিন ডেকে জমির মাপজোকে ব্যস্ত দুই ছেলে ও এক মেয়ে। প্রতিবেশীরাই এই ঘটনা জানতে পেরে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে ছুটে আসেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য সুব্রত বিশ্বাস। তাঁরাই গিয়ে দেখেন বৃদ্ধা মায়ের নিথর দেহ কাপড় ঢাকা দেওয়া অবস্থায় বিছানায় পড়ে রয়েছে। দুই ভাই আশীষ ও কমল দত্তের দাবি, অসুস্থ নিয়তিদেবী মেয়ে স্বপ্না দত্তের কাছেই থাকতেন। তিনিও পাশের বাড়িতেই থাকতেন। তাঁদের বোনই অসুস্থ মায়ের চিকিৎসার জন্য ডাক্তার ডাকতে দেয়নি বলে অভিযোগ জানাতে থাকেন দুই ভাই। অপরদিকে মেয়ে সপ্নাদেবীও পাল্টা অভিযোগ জানাতে থাকেন। অথচ দুপুর ২টোর পরও মায়ের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে অবাক পুলিশ-প্রশাসন। লজ্জায় মুখ ঢাকছেন প্রতিবেশীরাও। অথচ কোনও হেলদোল নেই তিন সন্তানের। শেষ পর্যন্ত পুলিশ ও পঞ্চায়েতের উদ্যোগে দাহকার্য সম্পন্ন হয় নিয়তিদেবীর।