কর্তারপুর নিয়ে ভারত-পাক বৈঠক ইতিবাচক

0
143

পুলওয়ামায় সেনা গাড়িতে জঙ্গি হামলার পর পরিস্থিতি ক্রমশই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল দু-দেশের মধ্যে। সম্পর্কের বরফ অনেকটাই গলল ওয়াঘা সীমান্তে দু-দেশের বৈঠকে। রবিবার কর্তারপুর করিডর নিয়ে বৈঠকে বসে দু-দেশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকেরা। ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের যুগ্মসচিব এসসিএল দাস, বিদেশ মন্ত্রকের যুগ্ম সচিব দীপক মিত্তল। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পাক বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র মহম্মদ ফয়জল। বৈঠকের ৮০ শতাংশই ইতিবাচক। বাকি বিষয়গুলি পরবর্তী বৈঠকে আলোচনা করা হবে। বৈঠক শেষে বললেন পাক বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র মহম্মদ ফয়জল। দুই দেশের শিখ তীর্থযাত্রীদের জন্য আগেই সড়কপথে জিরো লাইনে সেতু নির্মানের কাজ শুরু করে ভারত। প্রসঙ্গত প্রতিবছর বর্ষায় রবি নদীর জল উপচে পড়ে বানভাসী হয় গুরুদাসপুর। তীর্থযাত্রীরা যাতে সমস্যায় না পড়েন তার জন্য সেতু নির্মানের কাজ শুরু করেছিল ভারত। পাকিস্তানের সম্মতি না থাকায় বন্ধ হয়ে যায় সেতু নির্মানের কাজ। এবার বৈঠকে মিলল সেতু নির্মানের সম্মতি। প্রত্যেকদিন যাতে ৫ হাজার তীর্থযাত্রী গুরুদাসপুর ও কর্তারপুর গুরুদ্বারে যাতয়াত করতে পারেন সেই প্রস্তাব রাখা হয় বৈঠকে। বিশেষ দিনে অতিরিক্ত ১০ হাজার তীর্থযাত্রীর গুরুদ্বারে যাওয়ার জন্য প্রস্তাব রাখে ভারত। বৈঠকের পর ভারতের পক্ষ থেকে জানান হয় শীঘ্রই সেতু নির্মানের কাজ শেষ হবে। দুই দেশের তীর্থযাত্রীরা ছাড়াও যেসব নাগরিকদের কাছে বিদেশি নাগরিকত্বের কার্ড আছে তারাও এই করিডর ব্যবহার করতে পারবেন। সবমিলিয়ে কর্তারপুর নিয়ে ভারত-পাক বৈঠক ইতিবাচক। বলা যায় দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে শীতল সম্পর্ককে উষ্ণ করার প্রচেষ্টায় প্রতিফলিত হল এই বৈঠকে।