নব্বইয়ে টিনটিন

0
30

এই ভুয়ো খবরের রমরমার যুগে ৯০ বছরে পা দিল বেলজিয়ামের এক রিপোর্টার। যে সত্য উদঘাটন করতে জীবন বাজি রেখেছে কতবার। বারবার শত্রুর চক্রান্ত উড়িয়ে দিয়ে ছুটে বেরিয়েছে পৃথিবীর এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত। সর্বত্রই সমান জনপ্রিয় সে।
৯ দশক পার করল টিনটিন। প্রজন্মের পর প্রজন্ম সে মাতিয়ে রেখেছে আবিশ্ব কিশোর কিশোরীদের। ১৯২৯ সালের ১০ জানুয়ারি জন্ম হয় এই কার্টুন চরিত্রের। ব্রাসেলসের লে পেতি ভিনতিয়েম কাগজের ক্রোড়পত্রে। নীল সোয়েটার গায়ে, প্যান্ট গোটানো, কদমছাঁট চুলের এই আন্তর্জাতিক রিপোর্টারের স্রষ্টা বেলজিয়ামের শিল্পী হার্জ।
সাংবাদিকদের দুনিয়াজোড়া সত্যসন্ধানীর ভাবমূর্তি তৈরির মূলে সে। এখন যেমন উঠেত বসতে নেতারা রিপোর্টারদের ভুয়ো খবরের জন্য জনগণের শত্রু বলে গালমন্দ করেন, তখন টিনটিন রাষ্ট্রক্ষমতার বিপক্ষে দাঁড়িয়ে ন্যায়ের জন্য লড়াই চালিয়েছে।
পৃথিবীর নানা ভাষায় টিনটিনের বই আড়াই কোটিরও বেশি বিক্রি হয়েছে। নব্বই বছর পালন করতে হার্জ ফাউন্ডেশনের কর্তারা ঠিক করেছেন, বছরভর উদযাপন করা হবে। শুরু হবে বেলজিয়ামের আগেকার উপনিবেশ কঙ্গোয় টিনটিনের অভিযান দিয়ে। তার রঙিন ডিজিটাল সংস্করণ বের হবে। এর আগে কঙ্গোর মানুষদের নিয়ে বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ উঠেছে টিনটিনের বিরুদ্ধে। ঘটনাচক্রে এবারই কঙ্গোয় জিতেছেন বিরোধী নেতা।
তবে টিনটিনের ফাউন্ডেশনের মতে, এটা নিছকই কাকতালীয়। যেমন টিনটিন ইন রাশিয়া নতুন করে বের হয়েছে রুশ বিপ্লবের শতবর্ষে। এছাড়া, ফেব্রুয়ারিতে প্রথম টিনটিন স্টোর খোলা হচ্ছে সাংহাইয়ে। ফ্রান্স আর বেলজিয়ামে টিনটিন মডেল গাড়ি বেরোবে। বেরোবে বিশেষ টিনটিন মুদ্রা। ১৯৭৬ থেকে নতুন কোনও টিনটিন অভিযান প্রকাশ না হলেও আমাদের গণস্মৃতিতে চিরকাল বেঁচে থাকবে টিনটিন। একজন নির্ভীক, সত্যসন্ধানী রিপোর্টার হয়েই।