দাঁতের ব্যথা কমাতে হলে

0
35

দাঁতে ব্যথা হলে ডেনটিস্টের পরামর্শ নিন। তার আগে দাঁতের ব্যথাকে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রাখতে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন। ঘরোয়া পদ্ধতি অবলম্বণ করার সময় খেয়াল রাখবেন যাতে এমন কিছু না করা হয় যা আপনার সমস্যা আরও বাড়িয়ে তুলবে। তাই উপযোগী পদ্ধতি বেছে নিন।
সমাধান- ১
সমপরিমাণ কালো গোলমরিচের গুঁড়া আর নুন নিন। সামান্য জল মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। আক্রান্ত স্থানে কিছুক্ষণের জন্য এই পেস্টটি লাগিয়ে রাখুন। এভাবে কিছুদিন নিয়মিত করতে পারেন। এই মিশ্রনটি সেনসিটিভ দাঁতের জন্য বেশ উপকারী, কেননা এরা Antibacterial, Anti- inflammatory এবং Analgesic গুণাগুণ সমৃদ্ধ।
সমাধান- ২
কয়েকটি রসুনের কোয়া সামান্য ছেঁচে তাতে কিছুটা নুন মিশিয়ে লাগিয়ে রাখুন। দাঁতের ব্যাথা থেকে তৎক্ষণাৎ আরাম পাবেন। কারণ রসুন অ্যান্টিবায়োটিক ও ভেষজ গুণ সমৃদ্ধ হওয়ায় দাঁতের ব্যাথা কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
সমাধান- ৩
দুইটি লবঙ্গ পিষে তা অল্প অলিভ অয়েল কিংবা যেকোনও ভেজিটেবল অয়েলের সাথে মিশিয়ে ব্যাথার জায়গায় লাগান। লবঙ্গ ইনফেকশনের বিরুদ্ধে কাজ করে দাঁতের ব্যাথা নিরাময়ে সাহায্য করে।
সমাধান- ৪
অ্যান্টিসেপটিক, অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল গুণাগুণযুক্ত পেঁয়াজ দাঁতের ব্যাথা নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। কিছুক্ষণের জন্য কাঁচা পেঁয়াজ টুকরা করে চিবাতে থাকুন কিংবা পেঁয়াজের টুকরো নিয়ে আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে রাখুন।
সমাধান- ৫
অর্ধেক চামচ নুন এক গ্লাস কুসুম গরম জলের সাথে মিশিয়ে কুলকুচি করুন। এতে অনেক আরাম পাবেন। এতে ফোলাভাব কমে আসবে এবং ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাবেন।
সমাধান- ৬
কয়েকটি পেয়ারা পাতা নিয়ে চিবোতে থাকুন, এর রস দাঁতের ব্যথার জন্য উপকারী। তাছাড়া ৪/৫ টি পেয়ারা পাতা জলে দিয়ে ফুটোন। সেই জল ঠাণ্ডা করে সামান্য নুন মিশিয়ে মাউথ ওয়াশ হিসেবে ব্যবহার করুন।
সমাধান- ৭
ভ্যানিলা এক্সট্রাক্টের ব্যবহার দাঁতের ব্যাথা নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে বহুল ব্যবহৃত একটি পন্থা। একটি তুলার বল নিয়ে ভ্যানিলা এক্সট্রাক্টে ডুবিয়ে ব্যথাযুক্ত স্থানে লাগান। ফলাফল পেতে দিনে একাধিকবার লাগান। এতে ব্যথা অনেকটা সহনীয় হবে।
সমাধান- ৮
বরফের টুকরো ব্যথা উপশমে বেশ কার্যকরী। এজন্য সুতির পাতলা কাপড়ে একটি ছোটো বরফের টুকরো নিয়ে পেঁচিয়ে নিন। যেখানে দাঁতে ব্যথা সেখানে গালের কাছে নিয়ে কয়েক মিনিট ধরে রাখুন। যদি আপনার এক্সপোসড নার্ভের সমস্যা থেকে থাকে তাহলে ঠান্ডার সংস্পর্শে ব্যথা আরও বেড়ে যেতে পারে।