বেঙ্গল গেজেটের জন্মদিন

0
99

আজ ২৯ জানুয়ারি। ১৭৮০ সালের এ দিনে ভারতীয় উপমহাদেশে সংবাদপত্রের যিনি শুভ সূচনা করেছিলেন তিনি হলেন জেমস অগাস্টাস হিকি। কলকাতা থেকে প্রকাশিত ভারতের প্রথম সংবাদপত্র ‘বেঙ্গল গেজেট’র সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন তিনি।
১৭৭৪ সালে তিনি ভাগ্যান্বেষণে ইংল্যান্ডের বাকিংহাম থেকে হিজলিতে আসেন। প্রথমে তিনি জাহাজের ব্যবসা শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত এ ব্যবসায় বড় ধরনের মার খেয়ে খবরের কাগজ বের করার সিদ্ধান্ত নেন। প্রকাশিত হয় ‘বেঙ্গল গেজেট’।
ট্যাবলয়েড সাইজের দুই পাতার ইংরেজি ভাষার সাপ্তাহিক এ পত্রিকাটি জনসাধারণের কাছে ‘হিকির গেজেট’ নামেই বেশি পরিচিত ছিল। পত্রিকাটির বেশিরভাগ জায়গাজুড়েই থাকত বিজ্ঞাপন। প্রথম সংখ্যায় সবার নজর কাড়ে ‘পোয়েটস কর্নার’ বা কবিদের জন্য বিভাগটি।
সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে এ পত্রিকায় কবিতা লিখতেন স্বয়ং হিকি এবং আরও কয়েকজন। পাঠকদের চিঠি প্রকাশিত হতো নিয়মিত। এসব চিঠিতে যেমন থাকত কলকাতাসহ বিভিন্ন স্থানে বসবাসকারী ইউরোপীয়দের নানা অভাব-অভিযোগ ও অসুবিধার কথা, তেমনি থাকত প্রশাসনের দুর্নীতি ও অন্যায়ের খবরও।
রোহিলা যুদ্ধ, মারাঠা যুদ্ধ এবং তৎকালীন গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংসের ভুল নীতির কঠোর সমালোচনা করে চিঠি ও খবর প্রকাশিত হতে থাকে এ গেজেটে। তাছাড়া সেনারা কীভাবে বঞ্চিত হচ্ছেন, সরকারি সিক্কা মুদ্রা বাতিলের ফলে লেনদেনে কী অসুবিধার সৃষ্টি হল, আদালতে কী ধরনের বেআইনি কাজকর্ম চলছে এসব নিয়েও খবর ছাপা হত হিকির গেজেটে।
নিরপেক্ষ ও সাহসী সংবাদ প্রকাশের ফলে হিকির গুণগ্রাহীর সংখ্যাবৃদ্ধির পাশাপাশি তার শত্রুও বাড়তে থাকে। বিশেষ করে গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংস আর সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতি এলিজা ইম্পে প্রচণ্ড ক্ষেপে যান হিকির ওপর।
হেস্টিংস একের পর এক মামলা করতে থাকেন হিকির বিরুদ্ধে। একসময় তাকে জেলে পাঠানো হয়। হেস্টিংসের ইঙ্গিতেই ১৭৮২ সালের মার্চে প্রধান বিচারপতি ইম্পে বাজেয়াপ্ত করান হিকির প্রেস, ছাপার কাগজ, যন্ত্রপাতিসহ সবকিছু। ফলে বন্ধ হয়ে যায় হিকির গেজেট। চরম দারিদ্র্যের মধ্যে মাতৃভূমি ব্রিটেনে যাওয়ার অর্থ সংগ্রহের জন্য চিনের উদ্দেশে জাহাজে যাত্রা করেন হিকি।
কিন্তু তাঁর আর চীনে যাওয়া হয়নি। ১৮০২ সালের ১৬ ডিসেম্বর ‘ক্যালকাটা গেজেটে’ প্রকাশিত হয় ছোট্ট একটি খবর- ‘চিনে যাওয়ার পথে সমুদ্রে জাহাজের মধ্যেই শেষনিঃশ্বাস ফেলেছেন জেমস অগাস্টাস হিকি।’ — ড. কুদরাত-ই-খুদা বাবু (যুগান্তর)