চাকরি পেতে নারদ পুজো!

0
69

মহর্ষি নারদ দেবলোকে তাঁদের দুঃখ ও যন্ত্রনা পৌঁছে দেবেন, এই আশায় কয়েক বছর ধরেই বাঁকুড়ার ওন্দা ব্লকের রতনপুর গ্রামে হয়ে আসছে নারদ পুজো। কার্তিক মাসের এক বিশেষ তিথিতেই নারদ পুজোয় মেতে ওঠেন স্থানীয় যুবক-যুবতীরা। কারণ এখানকার মানুষদের বিশ্বাস বেকারত্বের জ্বালা-যন্ত্রণা নিয়ে চাকরিপ্রার্থীদের বার্তা দেবতাদের কানে তুলবেন মহর্ষি নারদ।


এরপরই মিলবে কাঙ্ক্ষিত চাকরি। এই বিশ্বাস থেকেই নারদ পুজোর আয়োজন বলে দাবি স্থানীয় মানুষের। পুরাণমতে, দেবর্ষি নারদ দেবলোকের সঙ্গে মর্ত্যলোকের যোগাযোগ স্থাপণ করেন। তিনিই পারেন যুব সমাজের বেকারত্বের যন্ত্রণা দেবলোকে পৌঁছে দিতে। তারপর দেবতাদের কৃপায় তাঁদের চাকরি নিশ্চিন্ত। মানুষের দাবি যাই হোক, এই নারদ পুজো দেখতে ভিড় জমান আশেপাশের বহু গ্রামের মানুষ। পুজো ঘিরে বসে মেলাও। এছাড়া জাঁকজমক ও আড়ম্বরে কোনও অংশে কম যায়না এই সর্বজনীন নারদ পুজো। মায়াবী এলইডি আলোর কারুকার্য, পুজোর দিন স্থানীয় যুবক-যুবতীরা বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা করেন। মেয়েরা লালপাড় সাদা শাড়ি পরে মঙ্গলঘট নিয়ে শোভাযাত্রা করেন। নিষ্ঠার সঙ্গেই হয় পুজোর আচার অনুষ্ঠান।


উদ্যোক্তাদের দাবি, যারা এই পুজো শুরু করেছিলেন তাঁরা প্রত্যেকেই সরকারি চাকরিতে যোগ দিয়েছেন। পরবর্তী সময়ে অনেকেই চাকরি পেয়েছেন। এরপর থেকেই এই পুজোর নাম ছড়িয়ে পরে আশেপাশের গ্রামগুলিতে। ফলে বিশ্বাস থেকেই পুজোর দিনে এই এলাকার ২০-২৫টি গ্রামের বেকার যুবক-যুবতী ও তাঁদের পরিবারের লোকজন হাজির হচ্ছেন এখানে। মনোস্কামনা পূরণের জন্য ভক্তিভরে পুজোও দেন তাঁরা।