খুন হয়ে যেতে পারেন, আশঙ্কা মমতার

0
1813

‘খুন’ হয়ে যেতে পারেন। শেষদফার প্রচারে শেষ দিনে এমনই আশঙ্কা প্রকাশ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন মথুরাপুরের সভায় তিনি বলেন, দুর্ঘটনা ঘটিয়ে তাঁকে মেরে ফেলা হতে পারে। তবে কোনও রকম ভয় দেখিয়েই তাঁকে আটকানো যাবে না বলে স্পষ্ট জানান তৃণমূল নেত্রী। মথুরাপুরের সভা থেকে ‘বঙ্গ মহিলা বাহিনী’ তৈরি করার ডাক দেন মমতা। তিনি বলেন, এই বাহিনী হবে জনগণের পাহারাদার। কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলি, বন্দুক কেড়ে নেবে। বাংলায় কোনও গুলি চলবে না বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

নির্বাচনী নির্ঘণ্ট থেকে শুরু করে রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিবকে অপসারণ, শেষ দফার ভোটে এ রাজ্যে প্রচারের সময়সীমা একদিন কমানো। নির্বাচন কমিশনের একের পর এক সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ তৃণমূল নেত্রী। সেই ক্ষোভ তিনি উগড়ে দিয়েছেন এদিনের বিভিন্ন জনসভায়। তাঁর কথায়, এভাবে রোখা যাবে না তাঁকে। ভোটপর্ব চলার মধ্যেই নির্বাচন কমিশনকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এভাবে আক্রমণে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে মমতার ইস্তফার দাবি তুললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। নির্বাচন কমিশনের বিভিন্ন সিদ্ধান্ত প্রশ্ন তুলে দিয়েছে রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে। রাজ্য প্রশাসনের কর্তাদের পক্ষপাতিত্বমূলক আচরণকেও কাঠগড়ায় তুলে দিয়েছে কমিশনের এই সব সিদ্ধান্ত। স্বভাবতই মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্ষোভ হওয়াটাই স্বাভাবিক বলে অভিমত রাজনৈতিক মহলের।
সভা শেষে বৃহস্পতিবারও পদযাত্রা করেন তৃণমূল নেত্রী। তৃণমূলের প্রার্থী, নেতা-কর্মীরা মিছিলে পা মেলান। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখতে বহু মানুষ ভিড় জমান রাস্তার দুধারে।