সুন্দরবনকে তছনছ করে সরে গেল বুলবুল

0
760

এপারকে স্বস্তি দিয়ে ওপারে গিয়েছে বুলবুল। তবে তার শক্তি অনেকটাই কমেছে। ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও সামান্য উত্তর-পূর্ব দিকে এগিয়ে রবিবার ভোর পাঁচটায় সুন্দরবনের ওপর দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপকূল পেরিয়ে গিয়েছে। ঘূর্ণিঝড় নিয়ে ফোনে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গো কথা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। তিনি রাজ্যকে সবরকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এদিকে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের দাপটে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর এসেছে দক্ষিণবঙ্গের নানা জায়গা থেকে। কলকাতা সহ রাজ্যে মৃতের সংখ্যা ৬। দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জের একটি অভিজাত ক্লাবের মধ্যে। গাছ পড়ে মারা যান শেখ সোহেল নামে ২৮ বছরের এক যুবক। পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম ২ নম্বর ব্লকের খোদামবাড়ি ১ অঞ্চলের ভেকুটিয়া গ্রামের সুজাতা দাস নামে এক মহিলার মৃত্যু হয়েছে। তাঁর বয়স ২৬। বাড়ির পিছনে একটা বড় খিরিশ গাছ তার মাটির বাড়ির উপর ভেঙ্গে পড়লে চাপা পড়েছিলেন সুজাতা দাস। বসিরহাটে গোকনা গ্রামে রবিবার ভোররাতে শিরিষ গাছ বাড়ির উপরে পড়ে বছর চল্লিশের গৃহবধূ রেবা বিশ্বাসের মৃত্যু হয়েছে। কলকাতায় শনিবার প্রায় সারারাত বৃষ্টির পর রবিবার সকাল থেকেই আকাশ অনেকটাই পরিষ্কার। রোদও উঠেছে। অন্যদিকে, বুলবুলের দাপটে সুন্দরবন সংলগ্ন বিভিন্ন দ্বীপ এলাকায় ভেঙে পড়েছে বহু মাটির বাড়ি। সরিয়ে নেওয়া হয়েছে সুন্দরবনের লক্ষাধিক লোককে। খোলা হয়েছে তিনশোর বেশি ত্রাণশিবির। গোসাবা ব্লকের সাতজেলিয়া, কুমিরমারি, লাহিড়িপুর পাখিরালয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। রাস্তাজুড়ে প্রচুর গাছ পড়ে থাকার কারণে মানুষের যাতায়াত প্রায় বন্ধ। প্রায় থমকে গিয়েছে সুন্দরবনের তীরবর্তী এলাকার জনজীবন। সুন্দরবনের ক্যানিং, গোসাবা ,বাসন্তী ও জীবনতলা এলাকাতেই প্রায় পাঁচ হাজারের উপর বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়েছে। ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে ধান চাষেও।