নামখানা-বকখালি দেখলেন মুখ্যমন্ত্রী, দ্রুত কাজের নির্দেশ

0
53

বুলবুল মোকাবিলায় প্রশাসনের কাজে খুশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বিধ্বস্ত নামখানা, বকখালি, সাগরের বিস্তীর্ণ এলাকা হেলিকপ্টারে পরিদর্শন করেন। আকাশপথে সরজমিনে দেখার পর কাকদ্বীপে দক্ষিণ ২৪ পরগনার প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরই তিনি জানিয়েছেন, বুলবুলের প্রভাবে মৃতদের পরিবারকে এককালীন ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেবে রাজ্য সরকার। সরকারি হিসেবে রাজ্যে মৃতের সংখ্যা ৭ জন। নিখোঁজ আরও ৮ জন। পাশাপাশি তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের যে প্রতিনিধি দল ঝড়ে বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে এসেছেন তাঁদের সম্পূর্ণ সহযোগিতা করার নির্দেশও দিয়েছেন। তিনি আরও জানান, ভারত সরকার বুলবুলের মোকাবিলা নিয়ে রাজ্যের তৎপরতার ভূয়সী প্রশংসা করেছে।

মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দক্ষিণ ২৪ পরগণার ১০০ শতাংশ কৃষিজমির ফসল নষ্ট হয়েছে। এরপরই তিনি সরকারি কর্তাদের নির্দেশ দেন, সমস্ত কৃষিজমিকে ফসলবিমার আওতায় নিয়ে আসার জন্য। সরকারি হিসেবে এই জেলায় ১ লক্ষ ১৫ হাজার হেক্টর কৃষিজমির ফসল নষ্ট হয়েছে বুলবুলের প্রভাবে। পাশাপাশি ৮ হাজার হেক্টর সবজি চাষ নষ্ট হয়েছে। এছাড়াও সেচ দফতরের আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছেন, অবিলম্বে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় বাঁধ মেরামতি করতে। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, আকাশপথেই দেখলাম, অনেক জায়গায় বাঁধ ভেঙেছে, সেগুলি দ্রুত সারিয়ে দিন। তাঁর হিসেবে রাজ্যে প্রায় ২ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বুলবুলের প্রভাবে। সেগুলি বাংলা আবাস যোজনায় তৈরি করে দেওয়ার কথাও জানিয়েছেন এদিন। পাশাপাশি ১০ দিনের মধ্যে বিদ্যুৎ দফতরকে এলাকায় বিদ্যুৎ পরিষেবা চালু করার নির্দেশ দিয়েছেন। এরজন্য অতিরিক্ত ২০০০ কর্মীকে কাজে লাগানোর কথাও জানিয়েছেন তিনি। তবে জমা জল, গাছ কাটা, বিদ্যুতের খুঁটি সারাতে প্রায় দুমাস লেগে যাবে বলেও উল্লেখ করেন মুখ্যমন্ত্রী।