ঘট, প্রদীপের আয়োজন

0
100

পর পর দুর্গাপুজো, লক্ষ্মীপুজো আর কালিপুজো। আর পুজোর সামগ্রীর মধ্যে আবশ্যিক হল মাটির ধুনুচি, ঘট আর প্রদীপ। একটু বেশি মুনাফা লাভের আশায় এখন উদয়াস্ত বেজায় ব্যস্ত উত্তর দিনাজপুর জেলার কুনোরের হাটপাড়ার মৃৎশিল্পীরা।
কয়েকদিন ধরে লাগাতার বৃষ্টি হবার ফলে কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়লেও সব সমস্যা অতিক্রম করে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন শিল্পীরা। বাড়ির সকলে মিলে দিন রাত এক করে মাটি দিয়ে ঘট,ধূনচি ও মাটির প্রদীপ বানিয়ে চলেছে। তাদের হাতের তৈরি মাটি ধূনচি, ঘট, প্রদীপ নিয়ে জেলার ভিন্ন প্রান্তের পাশাপাশি বিহার রাজ্যেও চলে যায় পাইকারেরা। তার পাশাপাশি মৃৎ শিল্পীরা কালিয়াগঞ্জের বিভিন্ন হাটে গিয়ে বিক্রি করে।
খুচরো হিসেবে ১০-১৫ টাকা ঘট ও ধুনুচি ভিন্ন সাইজের এবং পাইকারি হিসাবে ৭-৮ টাকা দরে। মুনাফা ভালোই হয় কমবেশি। সারাবছর মাটির কাজ করেই চলে তাদের একটু বেশি মুনাফা লাভের আশায় রাত দিন এক করে মাটির ঘট,ধূনচী বানিয়ে চলছে মৃৎশিল্পীরা। বাড়ির মহিলারা সংসারের যত টুকু না করলে হয় না ততটুকু কাজ করে স্বামীর সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করছেন।
এই মাটির ঘট ও ধুনুচি তৈরি যথেষ্ট কঠিন কাজ বলে জানান মৃৎশিল্পীরা । বিল থেকে কাদামাটি এনে হাতের কৌশলে ঘট ও ধুনুচির আকার দেওয়ার পর তা রোদে শুকিয়ে নিতে হয়। পরে তাতে রং করার র আগুনে পোড়াতে হয়। আগুনে পোড়ানো হলে সেই ঘট ও ধুনুচি বাজারে বিক্রির যোগ্য হয়। বাঙালির উৎসবের মরসুমে পুজো মণ্ডপে মণ্ডপে টির ঘট ও ধুনুচি ও প্রদীপ যোগাতে এখন তাই চরম ব্যস্ততা কুনোরের হাটপাড়ায়।

SHARE