খোলা আকাশের নীচে শিশুশিক্ষা

0
67

শিশুদের ঘর নেই। তাই বাধ্য হয়ে ঠান্ডার মধ্যে গাছের তলায় পড়াশোনা করতে হচ্ছে । উলুবেড়িয়া ২ ব্লকের উত্তর পীরপুর দোলুইপাড়ায় ৬৬ নম্বর শিশুশিক্ষা কেন্দ্র ২০০৭ সালে তৈরী স্থানীয় একটি ক্লাবে শুরু হয়। বছর দুয়েক ধরে ক্লাবের ঘরের চাল খারাপ হয়ে যাওয়ায় সমস্যায় পড়েছে শিশুশিক্ষা কেন্দ্রের কর্মী তনুশ্রী খাঁড়া । ঘর না থাকায় কখনও গাছতলায়, কখনও কোনও মন্দিরে, আবার কখনও কারও বারান্দায়। বৃষ্টি হলে বসার জায়গার অভাবে বন্ধ থাকে শিশুশিক্ষা কেন্দ্রের ক্লাস।
ঘর না থাকায়  পড়াশোনা ও পুষ্টিকর খাবার না পাওয়ায়  ক্ষোভ প্রকাশ করছেন গ্রামবাসীরা । উলুবেড়িয়া ২ ব্লকে মোট ২৩৯টি শিশুশিক্ষা কেন্দ্র আছে । এর মধ্যে ১২৪ টি নিজস্ব গৃহ আছে। ৪১টি বিভিন্ন প্রাথমিক স্কুলে চলে। ৬৪টি বিভিন্ন ক্লাবে বা কোন ব্যক্তির ঘরে চলে। উত্তর পীরপুর গ্রামের দলুই পাড়ার বাসিন্দা সুজাতা দলুই বলেন, বছর খানেক ধরে নিয়মিত শিশু শিক্ষা কেন্দ্র চলছে না । এর ফলে শিশু ও গর্ভবতী মায়েরা পুষ্টি কর খাবার পাচ্ছে না।
স্থানীয় আর এক বাসিন্দা গোপাল খাঁর অভিযোগ, ঘর সারানোর জন্য বহুবার ব্লক ও শিশু বিকাশ কেন্দ্র জানিয়েছি । কিন্তু কিছুই লাভ হয়নি । গ্রামের শিশুরা ও গর্ভবতী মায়েরা পুষ্টি কর খাবার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
শিশুশিক্ষা কেন্দ্রের কর্মী তনুশ্রী খাঁড়া বলেন, ঘর নেই ,রান্না করব কোথায়,  রান্নার সামগ্রী রাখার জায়গা নেই। বারে বারে সিডিপিও অফিসে জানিয়েছি। আমি প্রতিদিন কেন্দ্রে উপস্থিত হই। শিশুদের ডেকে নিয়ে গাছতলায় বসে পড়াই । বৃষ্টি হলে বাধ্য হয়ে বন্ধ রাখতে হয়। ৬৬ নং শিশু শিক্ষা কেন্দ্রে খাতায় কলমে ৬৬জন শিশু ও ৪ জন গর্ভবতী মা আছেন।