৪৭ বছরে পা দিলেন সচিন তেন্ডুলকর। করোনাভাইরাসের জন্য জন্মদিনে কোনও জাঁকজমক হবে না, আগেই জানিয়েছিলেন সচিন। এভাবেই তিনি সম্মান জানাচ্ছেন স্বাস্থ্যকর্মীদের। ডাক্তার, নার্স, পুলিশ, প্রতিরক্ষাকর্মী যাঁরা সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে লড়াই করছেন, শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন তাঁদের। তিনি ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ৫০ লাখ টাকা দান করেছেন। সচিন টানা ২৪ বছরের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শাসন করেছেন। অনুগামীদের কাছে তিনি ক্রিকেটের ভগবান বলে পরিচিত। মাত্র ১৬ বছর বয়সে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাইশ গজে অভিষেক হয়েছিল সচিনের। তারপর একের এক রেকর্ড ভেঙেছেন তিনি। নিজেকে তুলনীয় করেছেন ডন ব্র্যাডম্যানের সঙ্গে। ২০১২ সালের ডিসেম্বরে একদিনের ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করেছিলেন তিনি। সবরমক ক্রিকেট ছেড়েছেন ২০১৩ সালের নভেম্বরে। সেটিই ছিল তাঁর ২০০ তম টেস্ট ম্যাচ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ওয়াংখেড়েতে সেই তাঁর শেষ নামা। সব ফর্ম্যাট মিলিয়ে তাঁর সংগ্রহ ৩৪,৩৫৭ রান। টেস্টে ১৫,৯২১, ৪৬৩টি একদিনের ক্রিকেটে ১৮,৪২৬, টি ২০ আন্তর্জাতিকের একটি ম্যাচে ১০ রান। একদিনের ক্রিকেটে তিনিই প্রথন ডবল সেঞ্চুরি করেছিলেন ১৪৭ বলে। ২০১০ সালে গোয়ালিয়রে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তাঁর এই রেকর্ড। গোটা দুনিয়ায় তিনিই একমাত্র ১০০টি সেঞ্চুরি করেছেন। বহুদিন ধরে অম্লান থেকে যাবে এই রেকর্ড। ছটি বিশ্বকাপে তিনি ছিলেন ভরাতীয় টিমে।