হুগলির পোলবায় পুলকার দুর্ঘটনায় জড়িত পুলকারটির চালক শামিম আফরোজ আখতার আত্মসমর্পণ করল। শেওড়াফুলির বাসিন্দা শামিমের পুলকারেই কাউন্সিলর সন্তোষ সিংয়ের ছেলে ঋষভ স্কুলে যেত। দুর্ঘটনার দিন শামিম ঋষভকে বাড়ি থেকে তুলে মাঝরাস্তায় গাড়িটি পবিত্রকে দিয়ে দেয়। তারপরই গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। সেদিন থেকেই পালিয়ে বেরাচ্ছিল শামিম। জানা গিয়েছে বারুইপাড়ার বাসিন্দা জনৈক রহিত কোলের কাছ থেকে সে পুলকারটি কিনেছিলো তার গাড়ির ফিটনেস সার্টিফিকটে ছিল না। স্পিড গভর্নর কাটা ছিলো। পবিত্র দাসের সঙ্গে সহকারী অভিযুক্ত হিসাবে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর আগে দুর্ঘটনাগ্রস্ত পুলকারটি পরীক্ষা করে ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা জানিয়ে দিয়েছিলেন, দুর্ঘটনার আগে দুরন্ত গতিতে ছুটছিল গাড়িটি। ২০১৮ সালের পর ওই গাড়িটির কোনও ফিটনেস টেস্ট হয়নি। তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছিল, শামিম চুঁচুড়ার ওই ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের পড়ুয়াদের এই পুলকারে নিয়েই যাতায়াত করত। মাঝেমধ্যে পবিত্র দাস নামেও এক যুবক গাড়িটি চালাতেন। দুর্ঘটনার দিনও চালক বদল হয়েছিল।