দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছায়া এবার শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে। বুধবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে ঢুকে তাণ্ডব চালাল একদল দুষ্কৃতী। রীতিমতো হস্টেলের ভিতর ঢুকে বামপন্থী ছাত্রদের মারধোর করার অভিযোগ উঠল। এই ঘটনায় আহত দুই ছাত্র। অভিযোগ, তাদের উইকেট, বাঁশ ও লোহার রড নিয়ে আক্রমণ করা হয়েছে। আহতরা হলেন, স্বপ্ননীল মুখোপাধ্যায় ও ফাল্গুণী পান, দুজনেই অর্থনীতির ছাত্র। তাঁদের দুজনকেই স্থানীয় এক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাম ছাত্র সংগঠনের অভিযোগের তির বিজেপির ছাত্র সংগঠন এবিভিপি-র বিরুদ্ধে। যদিও তাঁদের পাল্টা দাবি, এই হামলার ঘটনায় এবিভি-র কেউ জড়িত নয়। তাঁদের আরও দাবি, বিশ্বভারতীতে এবিভিপি-র কোনও শাখা তৈরিই হয়নি।

যদিও ছাত্রছাত্রীদের একাংশের দাবি, আক্রমণকারীরা তৃণমূলের সক্রিয় কর্মী ছিল। এদের মধ্যে দুজন বর্তমান উপাচার্যের ছায়াসঙ্গী হয়ে থাকতেন। এই ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিশ্বভারতীর কেন্দ্রীয় ভবনে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে বিশ্বভারতী ছাত্র ঐক্য। বুধবার রাতে হস্টেলে হামলার পর হাসপাতালেও আক্রমণ করা হয়েছে বলে দাবি বাম ছাত্র সংগঠনের। এই নিয়ে মাঝরাতে শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতীর মূল ক্যাম্পাসে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তাকর্মীরা মূল গেটে তালা ঝুলিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। উল্লেখ্য, গত ৮ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত। তিনি একটি সেমিনারে বক্তৃতা দেন। সেখানে বাম ছাত্ররা বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন। এই জেরেই এই হামলা বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই থমথমে বিশ্বভারতীর গোটা চত্বর। পর্যাপ্ত নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন করা হয়েছে।