চুঁচুড়ার আদালতের পর শ্রীরামপুর আদালতও এবার ফাঁসির সাজা শোনাল খুনে অভিযুক্ত এক আসামীকে। সেই সঙ্গে খুনে সাহায্যকারী দুজনকে যাবজ্জীবন কারাবাসের নির্দেশ দিলেন শ্রীরামপুর আদালতের বিচারক। ২০০৮ সালে শৈলেন্দ্রনাথ শর্মা নামে এক ব্যবসায়ীকে খুন করে সেফটি ট্যাঙ্কে ঢুকিয়ে দেয় তপন বাগ নামে এক ব্যক্তি। হুগলির উত্তরপাড়া থানার পুলিশ তদন্তে নেমে তপন বাগকে গ্রেফতার করে। পরে আরও দুই অভিযুক্ত খুনের পর দেহ লোপাটের সাহায্যকারী তপনের বাবা নিরঞ্জন বাগ ও স্ত্রী সন্ধ্যা বাগকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। জানা গিয়েছে, ব্যবসায়িক লেনদেন নিয়ে গোলমালের জেরেই ওই ব্যবসায়ীকে নিজের বাড়িতে ডেকে খুন করে তপন। এরপর দেহ বস্তাবন্দি করে এলাকারই একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাঙ্কে ফেলে দেয় তারা। আগেই এই তিনজনকে দোষী সাব্যস্ত করে শ্রীরামপুর আদালত। শনিবার মূল অভিযুক্ত তপন বাগকে ফাঁসির সাজা শোনান শ্রীরামপুর আদালতের অতিরিক্ত জেলা দায়রা বিচারক মহানন্দ দাস। বাকি দুই অভিযুক্তকে যাবজ্জীবন কারাবাসের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। উল্লেখ্য, গত ২৭ শে জানুয়ারি চু্ঁচুড়া আদালতে বলাগড়ের একটি খুনের মামলায় দুই জনের ফাঁসির সাজা ঘোষণা হয়েছিল।