লকডাউনে ঘরবন্দি মানুষ যাতে ঘরেই থাকে তার জন্য আবেদন নিবেদন চলছেই সরকারি তরফে। তবুও সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাব প্রকট হয়ে দেখা দিচ্ছিল। এই পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবিলায় লকডাউনে মানুষকে ঘরমুখী করতে টিভির পর্দায় ফিরিয়ে আনা হয়েছিল কয়েকটি পুরোনো সিরিয়াল। এরমধ্যে অন্যতম হল নয়ের দশকের বিগ হিট টিভি সিরিয়াল রামায়ণ। আর এই পৌরাণিক কাহিনীর পুনঃসম্প্রচার শুরু হতেই দেখা গেল এর জনপ্রিয়তা কোনও অংশেই কমেনি। টিআরপি-তে অন্য সকলকেই ছাপিয়ে গেল মাত্র এক সপ্তাহেই। উল্লেখ্যে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। হিন্দি সহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ভাষার টিভি সিরিয়াল ও সিনেমার শ্যুটিং বন্ধ রয়েছে। তাই ঘরে বসে পছন্দের টিভি সিরিয়াল বা শোগুলি দেখতে পাচ্ছেন না সাধারণ মানুষ। তাই তাদের পুরোনো জনপ্রিয় টিভি সিরিয়ালগুলি ফিরিয়ে এনেছে দূরদর্শন। আর নতুন করে টিভির পর্দায় আভির্ভাব ঘটিয়েই ইতিহাস গড়ল রামানন্দ সাগরের ‘রামায়ণ’। ব্রডকাস্টিং অডিয়েন্স রিসার্চ কাউন্সিল (BARC) তাঁদের সর্বশেষ রিপোর্টে জানিয়েছে, গত সপ্তাহে রামায়নের যে চারটি এপিসোড দেখানো হয়েছে, সেগুলি দেখেছেন ১৭ কোটি মানুষ। উল্লেখ্য, রামায়ণের এই প্রথম এপিসোডই ৩ কোটি মানুষ দেখেছিলেন। বার্কের চিফ এক্সিকিউটিভ সুনীল লুলা জানিয়েছেন, রামায়ণ আমাদের হতবাক করে দিয়েছে। দিনে দুটি করে এপিসোড দেখানো হচ্ছে দূরদর্শনে। রবিবারই প্রথম এপিসোড দেখেছেন ৪ কোটি, দ্বিতীয় এপিসোড দেখেছেন ৫.১০ কোটি মানুষ। ২১ দিনের লকডাউনে দেশের সাধারণ মানুষকে নস্টালজিক অনুভুতি দিতেই আশি ও নব্বইয়ের দশকের অত্যন্ত জনপ্রিয় কয়েকটি টিভি সিরিয়াল পুনঃসম্প্রচার শুরু করে প্রসার ভারতী। রামায়ন, মহাভারত, সার্কাস, ব্যোমকেশ বক্সির মতো সিরিয়াল ফিরিয়ে আনা হয়েছে।